An Education Blog

word direction logo

এটিএম থেকে জাল নোট বেরোলে, কী করবেন

full_1460815519_1410183593বর্তমানে ব্যাংক শাখাগুলোর তুলনায় অটোমোটেড টেলার মেশিন (এটিএম) বুথে গিয়ে নগদ অর্থ উত্তোলন প্রভনতা বেড়েছে গ্রাহকদের। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায়, গ্রাহকরা প্রয়োজনের অতিরিক্ত টাকা নিজের কাছে রাখেন না।
 
তাই ঈদকে ঘিরে এটিএম বুথের ব্যবহার বাড়ছে। প্রত্যেক বছরেই আমরা এটিএম বুথগুলোতে জাল টাকা পাওয়ার খবর পেয়ে থাকি। যা নিয়ে গ্রাহকরাও ভীতির মধ্যে থাকে।
 
তাই এটিএম বুথে জাল টাকা বের হলে আপনি কি করবেন এ বিষয়গুলো নিয়ে আজ আমরা কথা বলব-
 
সাধারণত দেখা যায় আমরা যদি কোন ব্যাংক কিংবা এর শাখা অফিস থেকে টাকা তুলি তখন একটু সময় নিয়ে টাকাগুলো গুনে ও জাল কিংবা ছেড়া রয়েছে কিনা তা দেখি। কিন্তু এটিএম বুথ থেকে যদি আমরা টাকা তুলি সেক্ষেত্রে আমরা টাকা না গুনেই বাড়ি ফিরি। পরবর্তীকালে যখন অন্য কাউকে সেই নোট দিই, সে সময় ধরা পড়ল ব্যাপারটি। তাই প্রথমত, এটিএম বুথ থেকে
 
১) ATM গার্ডকে জানান: প্রথমেই এটিএম গার্ডের নজরে ব্যাপারটি আনুন। এটিএমে একটি রেজিস্ট্রার থাকে। সেখানে নোটের নম্বর এবং ট্রান্স্যাকশন আইডি-সহ অভিযোগ লিখুন। নির্দিষ্ট ঘরে তারিখ এবং সময় উল্লেখ করুন। নোট এবং অভিযোগটির ছবি তুলে রাখুন। কোনও অবস্থাতেই উইথড্রয়াল স্লিপটি ফেলবেন না।
 
২) যত শীঘ্র সম্ভব ব্যাংকে জানান: ঘটনার পর দ্রুত ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। যে ব্যাংকের এটিএম থেকে আপনি টাকা তুলছিলেন কাছাকাছি তার যে শাখা আছে সেখানে গিয়ে বিষয়টি জানান। কর্তৃপক্ষ নকল নোটটি আগে স্ক্যান করে রাখবে। পরে তা নষ্ট করে ফেলবে। যত টাকার নকল নোট আপনি পেয়েছিলেন তার সমান অঙ্কের টাকা আপনাকে ফেরত দেবে ব্যাংক।
 
৩) যদি ব্যাংক কোনও পদক্ষেপ না করে: যদি ব্যাংক ব্যাপারটি নিয়ে কোনও পদক্ষেপ না করে তবে আপনি সরাসরি বাংলাদেশ ব্যাংকে জানান। রিজার্ভ ব্যাংকের সাইটে গিয়ে ছবি এবং যাবতীয় প্রমাণ-সহ আপনি ই-মেল করুন।
 
৪) পুলিশের কাছে যান: আপনি পুলিশের কাছে সরাসরি এ ব্যাপারে সাহায্য চাইতে পারেন। উইথড্রয়াল স্লিপ এবং অভিযোগের নম্বর দিয়ে আপনি আফআইআর দায়ের করুন। পুলিশ এর বিরুদ্ধে তদন্ত করবে।
 
৫) আমাদেরও ফোন অথবা ই-মেইল করতে পারেন।

Leave a Reply

Share this

Journals

Email Subscribers

Name
Email *