An Education Blog

word direction logo

ঘুরে আসুন শিলং থেকে

Barapani Lake, Shillongভারতের মেঘালয় রাজ্যেরা রাজধানী শিলং বেশ জনপ্রিয় একটি পর্যটন শহর। প্রায় ৬,০০০ ফিট উচ্চতায় অবস্থিত শিলং শহর এবং তার আশেপাশে দেখার জন্য অনেক সুন্দর জায়গা আছে। বিশেষত যারা পুরো পরিবার নিয়ে স্বল্প খরচে দেশের বাইরে ঘুরতে যান তারা শিলংকে বেছে নিতে পারেন। বাংলাদেশের সিলেট জেলার সাথেই মেঘালয়ের অবস্থান। পৃথিবীর ২য় সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয় চেরাপুঞ্জিতে, যা মেঘালয় রাজ্যের অন্তর্গত। যারা মেঘ, পাহাড়-পর্বত এবং ঝরণা ভালোবাসেন তাদের জন্য মেঘালয় আদর্শ গন্তব্য।

কখন যাবেন:

মেঘালয় সারা বছরই যেতে পারেন। তবে পূজার সময়টা এড়িয়ে যেতে পারেন। সেসময় খুব বেশী ভিড় থাকে। আর বর্ষার সময় যাবার জন্য পর্যাপ্ত প্রস্তুুতি নিয়ে যান যেমন রেইন কোট, ছাতা ইত্যাদী সংগে নেয়া । কারণ চেরাপুঞ্চিতে অনেক বেশী বৃষ্টিপাত হয়। এছাড়াও ছোট-বাচ্চা থাকলে ডিসেম্বর-জানুয়ারী সময়টা এড়িয়ে যেতে পারেন। কারণ তখন তাপমাত্রা ৩-১০ ডিগ্রী থাকে, তবে বরফ পড়েনা।

কিভাবে যাবেন:

বিআরটিসির-শ্যামলী বাস:

ঢাকা থেকে বিআরটিসি শ্যামলীর গাড়ী ছাড়ে প্রতি বৃহস্পতি বার রাতে এবং ফিরে আসে সোমবার রাত ১০টায়। শিলং যাবার জন্য এটাই শিলং যাবার সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি। গাড়ী ভাড়া ৪,০০০ টাকা (রিটার্ন)। এছাড়াও ভিসা ফি ৬০০ টাকা+সার্ভিস চার্জ ৫০০ টাকা। মোট ৫,১০০ টাকা শ্যামলীতে জমা দিয়ে ভারতের ১-৬ মাসের ভিসা নিতে পারেন। এক্ষেত্রে সুবিধা হচ্ছে ইটোকেন নিতে হবেনা। তবে ৫ কর্মদিবস সময় লাগবে ভিসা পেতে। এছাড়া আপনার যদি ভিসা নেয়া থাকে ডাউকি হয়ে, আপনি শুধু বাসের টিকেট কেটেই যেতে পারেন। মনে রাখবেন ট্রাভেল ট্যাক্স ৫০০ টাকা দিতে হবে, সেটা রওনা দেয়ার আগে সোনালী ব্যাংক থেকে দিয়ে যাওয়াই ভালো।

বিকল্প পদ্ধতি:

আপনি যদি শ্যামলীর রুটে স্বাচ্ছন্দ বোধ না করেন, অথবা আপনার সাথে সময় না মিলে তাহলে নিজে নিজে ভিন্নভাবে যেতে পারেন। ঢাকা থেকে সিলেট রাতের বাসে চলে যান (ভাড়া নন-এসি ৪৭০ টাকা এসি ১২০০ টাকা) সকালে সিলেট নেমে সিএনজি বা গাড়ী ভাড়া করে চলে যান তামাবিল। বর্ডার পার হয়ে শিলংয়ের জন্য গাড়ী ভাড়া করুন। ট্যাক্সিতো ১২০০-১৫০০ রুপি নিতে পারে।

Nohkalikai Falls-Meghalayaকোথায় থাকবেনঃ

মেঘালয়ের পুলিশ বাজারের আসে পাশে অনেকগুলো হোটেল আছে। ভাড়া ৫০০-২০০০ রুপি। খোজাখুজি করে উঠে পড়ুন।

কোথায় খাবেনঃ

পুলিশ বাজারের আশে পাশে অনেক গুলো খাবার হোটেল আছে। সেখানে ভাত-মাছ খেতে পারেন। জনপ্রতি ১০০-১৫০ রুপি খরচ হবে। এছাড়া সাবওয়ে সহ আরো কয়েকটি চেইন আছে যেগুলোতে ২০০-৩০০ রুপিতে খেতে পাবেন।

আশেপাশের দর্শনিয় স্থানঃ

শুক্রবার দুপুর থেকে রাত থেকে রবিবার রাত (শ্যামলীর শিডিউলের সাথে মিল রেখে তৈরী করার চেষ্টা করলাম):শুক্রবার: শিলং পৈাছতে যদি দুপুর গড়িয়ে যায় সেদিন আর কোথাও না যেয়ে বিকাল বেলাটা শিলং শহরে ঘোরাঘুরি করে কাটাতে পারেন। বিকেলে উমিয়াম লেকটাও ঘুরে আসতে পারেন। অথবা ডন ভসকো মিউজিয়াম, ওয়ার্ড লেক দেখে সময় কাটান। সন্ধ্যাটা রাখুন কেনা কাটার জন্য।

শনিবার: চেরাপুঞ্জি বা সোহরা হচ্ছে শিলংয়ের মূল আকর্ষণ। যদি সংখ্যায় বেশী থাকেন নিজেরা একটা গাড়ী ভাড়া করে চলে যেতে পারেন। আর না হলে মেঘালয়ের ট্যুরিজমের বাসে করে যান। অনেকগুলা স্পটই একদিনে কভার করা যাবে। যেমন, সেভেন সিস্টারস ফলস, মাউসামি কেইভ, নুকায়কালী ফলস, মাউন্টেইন ভিউ ইত্যাদী। ট্যাক্সি ভাড়া: বড় ট্যাক্সি ৩,০০০-৩,২০০ রুপি, টাটা সুমো গাড়ী ৮/৯ জন যেতে পারবেন। আর ৪ বা তার নিচে হলে ছোট কালো ট্যাক্সি ভাড়া করতে পারেন।

রবিবার: যে গুলো বাদ পড়েছে যেমন: এলিফ্যান্ট ফলস এব শিলং পিক ঘুরে আসুন। দুটোই শহরের কাছাকাছি। ট্যাক্সি ভাড়া নিতে পারে ৩০০ রপি করে। লিভিং রুটের কথা ভুলে যেতে পারেন, ওটা একেবারে ডাউকির কাছে।সোমবারদিন ফিরে আসবেন। আমার ধারণা জনপ্রতি ১২,০০০ টাকা (১৫০ ডলার) যথেষ্ঠ শিলং ভ্রমণের জন্য। এর মধ্যে বাস ভাড়া+ভিসার ৫,০০০ টাকা বাদ দিলে থাকে ৭,০০০ টাকা।

শিলং থেকে অন্যান্য শহর:

আপনার হাতে যদি সময় থাকে তবে অন্যান্য শহরও ঘুরে আসতে পারেন। যেমন গুয়াহাটি, আসামের রাজধানী। শপিংয়ের ইচ্ছা থাকলে শিলং থেকে গুয়াহাটি ঘুরে আসতে পারেন, যেতে ৩ ঘন্টা লাগবে। ভাড়া শেয়ার গাড়ীতে ভাড়া ১৫০-২০০ রুপির মত। ভারতের অন্য কোন প্রদেশে যেতে হলেও আপনাকে গুয়াহাটি যেয়ে ট্রেন ধরতে হবে।

টিপসঃ

১. শিলংয়ে ডলার ভাংগানো খুব সমস্যা। ব্যাংকিং আওয়ারের মধ্যে আসতে পারলে ব্যাংক থেকে ভাংগান আর না পারলে শ্যামলীর সুপারভাইজারকে বলুন সাহয্য করতে। তাও সম্ভব না হলে পুলিশ বাজারের কাছে একটা কাপড়ের দোকান আছে সেখানে ভাংগাতে পারবেন কিন্তু ঠকাবে

২. মেঘালয় আসামী ট্যাক্সি ড্রাইভার থেকে দূরে থাকবেন, এরা আপনার সাথে বিভিন্ন ধরণের প্রতারণা করতে পারে। গারো/খাসিয়া ট্যাক্সী ড্রাইভার নিবেন।

৩. সন্ধ্যার সাথে সাথে মোটামুটি লোক চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তবুও মুভি দেখেতে যেতে পারেন। যদিও সিনেমা হলটা খুব ভালো কিছু না।

৪. খাবার সময় মনে রাখবেন রুই মাছ সবচেয়ে সস্তা এবং ইলিশ মাছ সবচেয়ে দামী, ভুলেও বাংলাদেশ থেকে ৬ মাস আগে রপ্তানী করা ইলিশ মাছ খাবেন না।

৫. রবিবার মোটামুটি সব কিছুই বন্ধ থাকে, কখাটা মাথায় রাখবেন।

Reference: http://tob.camp/wiki

Leave a Reply

Share this

Journals

Email Subscribers

Name
Email *