An Education Blog

word direction logo

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিদের জন্য আরো কিছু ব্যবসা

1435663749phpmKeek9কুয়ালালামপুর থেকে: সম্প্রতি ‘মালয়েশিয়ায় জাঁকিয়ে বসতে পারে বাংলাদেশ’ শিরোনামে বাংলানিউজে রিপোর্ট প্রকাশের পর সাড়া মিলেছে ব্যাপক। অনুরোধ এসেছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সমৃদ্ধ এই দেশটিতে বাংলাদেশিদের ব্যবসায়িক সম্ভাবনা নিয়ে আরো রিপোর্ট প্রকাশের। তারই প্রেক্ষিতে এবার আরো কিছু স্বল্পপুঁজির লাভজনক ব্যবসার আদ্যোপান্ত তুলে ধরছে বাংলানিউজ।   খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিভিন্ন চেইন শপ এর ফ্র্যাঞ্চাইজি নিয়ে, প্রি স্কুল ও ল্যাঙ্গুয়েজ সেন্টার খুলে, ইন্টেরিয়রের কাজ করে, সেলুন দোকান দিয়ে, কারওয়াশ করে, রেন্ট এ কার খুলে ও পুরনো গাড়ি কেনাবেচা করে, সাইবার ক্যাফে খুলে, মোবাইল লোড-ফটোকপির দোকান দিয়ে, টেইলরিং শপ খুলে, ফলের দোকান সাজিয়ে, প্রিন্টিং ব্যবসা করে পর্যাপ্ত আয়ের সুযোগ আছে মালয়েশিয়ায়। কেকে, ৭/১১, বারজায়া গ্রুপ, হান্ড্রেড প্লাস ও মাইনিউজ.কম এর মতো মালয়েশীয় চেইন শপের পাশাপাশি বিশ্বখ্যাত ম্যাকডোনাল্ডস ও কেএফসি’র ফ্র্যাঞ্চাইজি বা ব্র্যাঞ্চ পাওয়া যায় মালয়েশিয়ায়। এছাড়া নতুন আরো শতাধিক প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি ফ্র্যাঞ্চাইজি দেওয়া শুরু করেছে। কেউ যোগাযোগ করলে এদের ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়া সমস্যা নয়।

মালয়েশিয়ায়-ক্যাটাগরি-১-ভিসা-পেতেপ্রতিটি ব্র্যান্ডেরই সারা দেশে কয়েক হাজার করে দোকান বা শাখা আছে। রেমলি নামে যে কিয়স্ক (ক্ষুদ্র দোকান) এখন ভালো ব্যবসা করছে তাদের ২১শ’ শাখা আছে গোটা মালয়েশিয়ায় ছড়িয়ে। প্রতিষ্ঠানটি আরো শাখা দিচ্ছে। ফেরতযোগ্য জামানত হিসেবে মাত্র ২ হাজার রিঙ্গিত (১ রিঙ্গিতে ২০ টাকা) ব্যাংক একাউন্টে রেখে ৩ হাজার রিঙ্গিতে কোম্পানি খুলে এসব চেইন শপ এর ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়া যাবে। এরপর নিতে হবে দোকান ভাড়া।   মালয়েশিয়াতে দোকান ভাড়া নিতে বাংলাদেশের মতো ১৫/২০ লাখ টাকা জামানত রাখার দরকার হয় না। উপরন্তু দোকান ভাড়া পাওয়া যায় তুলনামূলক কম খরচে।

CiqfDeEWgAQRaTqযেমন, ১৬শ’ বর্গফুট দোকান মাত্র ১৮শ’ রিঙ্গিতে ভাড়া পাওয়া যায কুয়ালালামপুরের অন্যতম হার্টপয়েন্ট চেরাসে। এর অর্থ হলো, চলতি মাসের ভাড়া ও দুই মাসের আগাম দিয়ে মাত্র ৫ হাজার ৪শ’ রিঙ্গিতে দোকান ভাড়া পাওয়া যাবে মালয়েশিয়ায়। উপরন্তু অনেক অফিস ডেকোরেশন করাই থাকে। আর দোকান সাজানোর খরচ কিছু থাকলেও লাখ লাখ টাকার পণ্য পাওয়া যায় টাকা ছাড়াই্। বিক্রি করে টাকা দিতে হবে। লাভের কমিশন থাকবে নিজের কাছে। অনেক কোম্পানি তো ফ্রিজটাও দিয়ে দেয়। এভাবে ৫০ হাজার টাকা ডিপোজিট রেখে মাসে ১০ থেকে ৬০ লক্ষ টাকার পণ্য পাওয়া যায় অনায়াসে। আরো করা যায় প্রি স্কুল। বিদ্যমান কোনো প্রি স্কুলের ব্র্যাঞ্চও খোলা যায় মালয়েশিয়ায়। এজন্য হয়তো ২ লাখ মালয়েশিয়ান রিঙ্গিত খরচ হবে। কয়েক জন মিলে উদ্যোগ নিলে এটা বড় কোনো পুঁজি নয়। প্রতিটি স্কুলের ধারণ ক্ষমতা থাকবে ১শ’ থেকে দেড়শ’ ছাত্রের। কিন্তু মাত্র ২৫ জন ছাত্র পেলেই স্কুল লাভজনক হয়ে যাবে। যে কোনো কনডোমিনিয়াম (ছোট ছোট ফ্ল্যাটের কমপ্লেক্স) এর কাছে স্কুল দিলে ৩০/৪০ জন ছাত্র পাওয়া খুবই সম্ভব।

port-klang-malaysia-640x350_2727ছাত্র প্রতি মাসে পাওয়া যাবে ৭শ’ রিঙ্গিত করে। এর মধ্যে ৩শ’ রিঙ্গিত যাবে ডে কেয়ারে। তাতে অফিস ভাড়া উঠে যাবে। আর দেড় হাজার রিঙ্গিত করে ৪ জন শিক্ষক রাখলে খরচ হবে মাসে ৬ হাজার রিঙ্গিত। তার মানে, সব মিলিয়ে মাসে খরচ হবে ১০ হাজার রিঙ্গিতের মতো্। আর লাভ থাকবে অন্তত ১০ হাজার রিঙ্গিত। একইভাবে করা যাবে ল্যাঙ্গুয়েজ সেন্টার। মালয়েশিয়াতে এখন মালয় ছাড়াও ইংলিশ, চায়নিজ, আরবি ও ফ্রেঞ্চ ভাষার বেশ চল আছে। এর আয়-ব্যয়ের হিসাবটাও প্রি স্কুলের মতোই। এছাড়া মালয়েশিয়াতে ৫শ’ থেকে ১ হাজার বর্গফুট এলাকা নিয়ে সেলুন করা যায়। ২শ’ থেকে ৫শ’ বর্গফুট আয়তনের সেলুন দোকানের ভাড়া পড়বে ১ হাজার থেকে দেড় হাজার রিঙ্গিত। তাতে দু’জন কারিগর কাজ করবে। তাদেরকে দিতে হবে মাসে দেড় হাজার টাকা করে। সঙ্গে কমিশন। কিন্তু এখানে চুল কাটার জন্য ৭ থেকে ১০ রিঙ্গিত এবং চুলকাটা ও সেভ করার জন্য ১৭ থেকে ২০ রিঙ্গিত দিতে হয়। তাই সব কিছু দিয়েও এ খাতে লাভ ঠেকবে না। আরো আছে কারওয়াশের কারবার। হাজার হাজার গাড়ি চলে মালয়েশিয়ার রাস্তায়। প্রতিটি গাড়ি ২/৩ দিন পর পর ধুতে হয়। একটি গাড়ি ওয়াশে পাওয়া যায় ১০ থেকে ২০ রিঙ্গিত।

251উপরন্তু এ ব্যবসার জন্য অফিস ভাড়া নেওয়ার প্রয়োজন নেই। সেড থাকলে ভালো, না থাকলেও অসুবিধা হবে না। এছাড়া অকল্পনীয় লাভ সাইবার ক্যাফেতে। মালয়েশিয়া যদিও ওয়াই-ফাই এর দেশ। কিন্তু বড় পিসিতে গেমস খেলার নেশা আছে মালয়েশিয়ানদের। তাদের জন্য সাইবার ক্যাফে ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখতে হয়। প্রতি ঘণ্টা ২ রিঙ্গিত করে ধরলে একটা পিসিতে দিনে আয় হয় ৪৮ রিঙ্গিত। ৫০টা পিসি রাখলে ৮০ শতাংশই ফুল থাকবে। রেন্ট এ কার ও গাড়ি কেনাবেচার ব্যবসাটাও মন্দ না। ৫ হাজার থেকে ২০ হাজার রিঙ্গিতে গাড়ি কিনে ডেন্টিং-পেন্টিং করে বিক্রি করলে লাভ আসবে। এখানে মালয়েশীয় ব্র্যান্ড প্রোটন আর পুডু ছাড়াও টয়োটার কদর আছে। তাছাড়া অনলাইন শপ মুদা.মাইতে বিজ্ঞাপন দিলে ছোট জিনিসও বিক্রি হয়ে যায়। আর ঘরের সংস্কার ও অঙ্গসজ্জা বা ইন্টেরিয়রের কাজ করলে অল্প দিনেই পকেট ফুলে উঠবে। এ কাজে কোনো পুঁজি দরকার হয় না। পারিশ্রমিক পাওয়া যায় অন্য কাজের পাঁচগুণ। মোবাইল লোড আর ফটোকপির দোকানেও ভালো আয়। প্রতি পাতার ফটোকপি ২০ সেন্ট থেকে শুরু করে ১ রিঙ্গিত পর্যন্ত নেয় মালয়েশিয়ায়। কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজের কাছে এ ব্যবসা ধরলে লাভ না করার কোনো কারণ নেই। এ/৫ সাই্জের ৬ হাজার কপি কাগজে প্রিন্ট খরচ পড়ে ৩শ’ রিঙ্গিত। যা বিক্রি হবে ৫শ’ রিঙ্গিতে। এছাড়া প্রতি এলাকাতেই টেইলরিং শপ দরকার হয়। ফলের দোকান আর মুদি দোকান সাজিয়ে বসার সুযোগ তো আছেই।

Source: http://goo.gl/MpJzLC

Leave a Reply

Share this

Journals

Email Subscribers

Name
Email *